জন্মদিনের সাহায্যে জানুন আপনি কীসে ভয় পান - আপনার সেবা

রবিবার, ৫ জানুয়ারী, ২০২০

জন্মদিনের সাহায্যে জানুন আপনি কীসে ভয় পান

এমন অনেক ভীতি আছে, যা প্রতিটি মানুষের চলার পথের সঙ্গী। কেউ সামান্য উচ্চতাতেও ভয়ে কাবু, আবার কেউ ভয় পান অপমানের, কারও ভয় প্রত্যাখ্যানের। 

সবাই যে সবসময় তার ভীতি বা দুর্বলতার জায়গা প্রকাশ করেন, তা-ও না। কিন্তু, আপনি চাপা দেওয়ার চেষ্টা করলেও সেটা আসলে ব্যর্থ প্রচেষ্টা। আপনার রাশিই ফাঁস করে দেবে, আপনার কীসে ভীতি বেশি।

মেষ (মার্চ ২১-এপ্রিল ১৯)
অশান্তি একদমই পছন্দ নয় আপনার। তবে ভালবাসেন অ্যাডভেঞ্চার। বোরিং লাইফ পছন্দ নয়। তবে ‘ফিয়ার অফ ব্রেকিং-আপ’ আপনাকে সবচেয়ে বেশি তাড়িয়ে বেড়ায়। এই ভয়ও আপনার অহেতুক নয়, কারণ আপনার কোনও সম্পর্কই বেশি দিন টেকে না। সম্পর্কের পরেও সেজন্য নিজেকে গুটিয়ে রাখেন।

বৃষ (এপ্রিল ২০-মে ২০)
আপনি পরিকল্পনা করে পা ফেলেন। কী ভাবে চলবেন, কী করবেন, আপনার নিজের মতো করে সাজিয়ে নেন। পরিকল্পনার বাইরে বেরোতে চান না। অনেকটাই আত্মকেন্দ্রিক। অচেনা পরিবেশ আপনার ভয়ের কারণ। চেনা পরিবেশের বাইরে আপনি খরগোসের মতো গুটিয়ে থাকেন।

মিথুন (মে ২১-জুন ২০)
বন্ধু-বান্ধব নিয়ে পার্টি করতে ভালোবাসেন। সৃজনশীল মানুষ আপনি। আপনাকে কিছুতেই দমিয়ে রাখা যায় না। কিন্তু আপনার দুর্বলতা বা অপারগতা যদি প্রকাশ হয়ে পড়ে, এটাই আপনার কাছে ভয়ের জায়গা।

কর্কট (জুন ২১-জুলাই ২২)
আর পাঁচ জন সংবেদনশীল মনের মানুষ যেমনটা হয়, আপনিও তেমনই, অন্যের প্রতি সহানুভূতিশীল। অপরের দুঃখ আপনাকেও ব্যথিত করে। আপনার এই সংবেদনশীলতা, আপনার আবেগ, এসবের কারণেই প্রত্যাখ্যান আপনার কাছে অসম্মানের। যদি প্রস্তাব নাকচ হয়ে যায়, সেই ভীতি থেকে কাউকে প্রেম নিবেদন করার আগে বারবার ভাবেন।

সিংহ (জুলাই ২৩-আগস্ট ২২)
প্রচণ্ড রকম আত্মবিশ্বাসী। কঠিন মনের মানুষ আপনি। কিন্তু, আপনাকে দমিয়ে দেওয়াও খুব সহজ। কেউ তুচ্ছ জ্ঞান করলে, বা পাত্তা না দিলে, বা আপনার গুণের তারিফ না করলে, আপনি ক্ষুব্ধ হন। মেনে নিতে পারেন না। ফলে, আপনাকে উস্কে দেওয়া সহজ কাজ। এটাই আপনাকে ঘায়েল করার দুর্বল জায়গা।

কন্যা (আগস্ট ২৩-সেপ্টেম্বর ২২)
যেকোনও পরিস্থিতিতে মানিয়ে নিতে পারেন আপনি। শুধু নিজে মানানো নয়, যেকোনও অবস্থা দক্ষতার সাথে সামলাতে পারেন আপনি। কেউ যদি কথা না শোনে, আপনার বক্তব্যকে নস্যাত্‍‌ করে দেন, এটাই আপনাকে ভয়ে ভয়ে রাখে। ভাবেন, নিজের সুনামে কালি পড়বে।

তুলা (সেপ্টেম্বর ২৩- অক্টোবর ২২)
যেকোনও মূল্যে শান্তি চান আপনি। অনাত্মীয়কেও ভালোবেসে কাছে টেনে নিতে পারেন। অন্যের মন পড়তে পারেন। কোনও বিষয়েই দ্বন্দ্ব বা বিতর্ক চান না। লোকজনকে খুশি করতে পারলেই আপনি নিজে খুশি হন। আপনি কখনোই চান না আপনার কাজে বা ব্যবহারে কেউ মনক্ষুণ্ণ হোক বা কষ্ট পাক। এই ভাবনাই আপনাকে সংকুচিত করে রাখে।

বৃশ্চিক (অক্টোবর ২৩-নভেম্বর ২১)
যেকোনও চ্যালেঞ্জ নিতে পিছপা নন আপনি। সেই ক্ষমতাও আপনার মধ্যে আছে। আপনার ভীতির জায়গা হল ব্যর্থতা। ব্যর্থতাকে কোনও ভাবেই মেনে নিতে পারেন না। নিজেকে সবসময় চ্যাম্পিয়ন হিসেবে দেখতে চান। নিজেকে নিয়ে অনিশ্চয়তাতেও ভোগেন। 

ধনু (নভেম্বর ২২- ডিসেম্বর ২১)
মুক্ত বিহঙ্গের মতো প্রাণপ্রাচুর্যে ভরপুর আপনি। ধরাবাঁধা গণ্ডির মধ্যে থাকা পছন্দ নয়। আপনার ভয়, যদি সত্যি একদিন পায়ে বেড়ি পরে? মানে, এমন জীবন, যেখানে নিজের স্বাধীনতা নেই, অন্যের ইচ্ছেতে চালিত হতে হয়, পদে পদে হস্তক্ষেপ, এসবই আপনাকে বিচলিত করে।

মকর (ডিসেম্বর ২২-জানুয়ারি ১৯)
মকর রাশির লোকজন যেভাবে নিজের স্বপ্নকে রূপায়িত করতে পারেন, আর কেউ পারেন না। এদের উচ্চাকাঙ্ক্ষা থাকে, প্রেরণা থাকে, যার জন্য নির্দিষ্ট লক্ষ্য ছুঁতে সমস্যা হয় না। তা-ও কখনও কখনও নিজেকে যোগ্য বলে মনে করেন না আপনি। আত্মবিশ্বাসের এই চোরা ঘাটতি আপনাকে পিছিয়ে দেয়।

কুম্ভ (জানুয়ারি ২০- ফেব্রুয়ারি ১৮)
মানিয়ে গুছিয়ে চলতে পারেন আপনি। কীভাবে উত্তেজনা প্রশমন করতে হয়, তা জানেন। আপনি পরোপকারী। অন্যের বিপদে সাতপাঁচ না ভেবে ঝাঁপিয়ে পড়েন। যদি, প্রিয়জনের প্রয়োজনের মুহূর্তে পাশে থাকতে না পারি, এটাই ভাবিয়ে তোলে কুম্ভরাশির জাতককে।

মীন (ফেব্রুয়ারি ১৯-মার্চ ২০)
আপনি খুবই সৃজনশীল। মনের দিক থেকেও সংবেদনশীল। নিজের সমালোচনা সহ্য করতে পারেন না। কোনও কিছুর মুখোমুখি হতে অযথা ভয় পান। কোনো কারণে উপরমহলে ডাক পড়লে, নার্ভাস হয়ে পড়েন।

আসলে সবারই কোনো না কোনো বিষয়ে ভীতি থাকে। কিন্তু ভয় পান বলে, সেই কাজটা এড়িয়ে যেতে চাইলে, তাতে ব্যর্থতার হার বাড়বে বই কমবে না। অতএব, এগিয়ে যান কোনও কিছুর তোয়াক্কা না-করে। নতুন বছরে নিজেকে ভরসা দিন এই বলে, যা হবে, দেখা যাবে। ভয়ে সংকুচিত হয়ে থাকবেন না।


কোন মন্তব্য নেই:

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন


আপনিও লেখক হতে পারেন । আপনার আশপাশে ঘটে যাওয়া যেকোনো ঘটনা, ভ্রমণ অভিজ্ঞতা, ক্যাম্পাসের খবর, তথ্যপ্রযুক্তি, বিনোদন, শিল্প-সংস্কৃতি ইত্যাদি বিষয়ে লেখা পাঠান: apanarseba@gmail.com ই-মেইলে।